ইয়েমেনের বিপর্যয় ঠেকাতে সৌদি অবরোধ শিথিলের আহ্বান থেরেসার

ইয়েমেনের মানবিক বিপর্যয় ঠেকাতে জরুরি ভিত্তিতে দেশটিতে আরোপিত অবরোধ শিথিল করার জন্য সৌদি আরবের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে।। তিনদিনের মধ্যপ্রাচ্য সফরের অংশ হিসেবে বুধবার রাতে সৌদি বাদশাহ সালমান ও যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের সঙ্গে সাক্ষাতের সময় এ আহ্বান জানান তিনি। বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) থেরেসা মে’র কার্যালয় থেকে প্রকাশিত এক বিবৃতির বরাত দিয়ে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা খবরটি জানিয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়, ‘তারা বৈঠকে ইয়েমেন নিয়ে আলোচনা করেছেন,সেসময় প্রধানমন্ত্রী স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছেন, যদি আমরা মানবিক বিপর্যয় এড়াতে চাই তবে ইয়েমেনে বাণিজ্যিক সরবরাহ আবার শুরু করতে হবে; এর উপরই দেশটি নির্ভর করে। তারা জরুরি ভিত্তিতে এ সমস্যা মোকাবিলার জন্য পদক্ষেপ নেওয়ার ব্যাপারে একমত হয়েছেন এবং কিভাবে তা অর্জন করা যায় সে ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনায়ও রাজি হয়েছেন। সম্প্রতি সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদকে লক্ষ্য করে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইয়েমেনের বিদ্রোহী গোষ্ঠী হুথি। জবাবে ইয়েমেনের স্থল, জল ও আকাশপথ বন্ধ করে দেয় সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট।

 

সৌদি আরবের দাবি এই অবরোধের মাধ্যমে তারা ইরানকে বিদ্রোহীদের অস্ত্র দিতে বাধা দিচ্ছে। তবে ইরান এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছে। নভেম্বরের শুরুর দিকে ২২টি মানবিক সহায়তা প্রদানকারী সংগঠন সতর্ক করেছিল, ইয়েমেনের ৭০ লাখ মানুষের জন্য মাত্র ছয় সপ্তাহের খাদ্য মজুদ আছে এবং ইয়েমেনিরা দুর্ভিক্ষের মতো পরিস্থিতির সন্মুখীন হচ্ছে। এর আগে জাতিসংঘ ও রেডক্রস জানিয়েছিলো ওষুধসহ অনেক ত্রাণ সীমান্তে আটকে আছে। জরুরি ভিত্তিতে সেগুলো দুর্ভিক্ষপীড়িত মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া দরকার। উল্লেখ্য, ১৯৭৯ সালে ইরানে সংঘটিত ইসলামি বিপ্লবের পর থেকেই দেশটিকে ঐতিহাসিক ও ধর্মীয় পরিসরে শক্ত প্রতিপক্ষ বিবেচনা করে আসছে সৌদি আরব। সুন্নি মুসলিমপন্থী সৌদি আরবের আশঙ্কা, শিয়াপন্থী ইরান তাদের চ্যালেঞ্জ জানাতে পারে। ইরাকযুদ্ধ ও আরব বসন্তের সুযোগ নিয়ে বাড়াতে পারে অঞ্চলগত প্রভাব। বাগদাদ, দামেস্ক, সানা ও বৈরুতের ধারাবাহিকতায় তেহরান মধ্যপ্রাচ্যের বাদবাকি দেশগুলোকে নিজেদের কব্জায় নিতে পারে বলেও আশঙ্কা রয়েছে সৌদি আরবের। এই বাস্তবতায় মধ্যপ্রাচ্যে নিজেদের কর্তৃত্ব নিরঙ্কুশ করার লড়াইয়ে নেমেছে তারা। দেশের অভ্যন্তরে দুর্নীতিবিরোধী লড়াইয়ের নামে আর ইরানঘনিষ্ঠ ইয়েমেন-লেবাননের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণার অভিযোগ তুলে তেহরানবিরোধী ছায়াযুদ্ধ শুরু করেছে সৌদি আরব। ২০১৫ সাল থেকে সৌদি জোট ইয়েমেনে হুথি বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান পরিচালনা করে আসছে। এ যুদ্ধে ১০ হাজারের বেশি মানুষ নিহত হয়েছেন। সৌদি আরব আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সমর্থিত নির্বাসিত প্রেসিডেন্টের হয়ে এই সামরিক অভিযান চালাচ্ছে। হুথি বিদ্রোহীদের সমর্থন করছে সৌদি আরবের আঞ্চলিক প্রতিদ্বন্দ্বী ইরান।