এবার কোচ হলেন মাশরাফি

আগামী ১৫ জানুয়ারি থেকে ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কা ও জিম্বাবুয়েকে নিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। এরপর শ্রীলঙ্কার সঙ্গে ২টি করে টি-টুয়েন্টি ও টেস্ট ম্যাচের হোম সিরিজ। কিন্তু এ সিরিজগুলোতে নেই বাংলাদেশের কোন প্রধান কোচ। টেকনিক্যাল ডিরেক্টর হিসেবে আছেন খালেদ মাহমুদ সুজন। তবে মূল দায়িত্বটা থাকবে দুই অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা ও সাকিব আল হাসানের হাতেই। বছরের প্রথম দিনে এ দুই অধিনায়কের সঙ্গে শুভেচ্ছা আলোচনার পর এমনটাই জানিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

তবে এবারই নয়, বিপিএল চলাকালীন সময়েও দলের সিনিয়র খেলোয়াড়দের নিয়ে আলোচনা শেষে পাপন জানিয়েছিলেন এবার কোচের ভূমিকা পাপন করবেন খেলোয়াড়রাই। তবে সোমবার ব্যাপারটা আরো স্পষ্ট করেই জানালেন, ‘আমাকে যদি জিজ্ঞাসা করেন, এবার কোচ হচ্ছে সাকিব ও মাশরাফি। ওদের উপরই ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে। সিনিয়র খেলোয়াড় যারা আছে তাদের উপরই ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে। ওরা বেশ আত্মবিশ্বাসী। এর আগেও আমরা বসেছিলাম। তামিম, সাকিব, মাশরাফি, মুশফিকও ছিল। ওরা বেশ আত্মবিশ্বাসী যে ওরা এই সিরিজটা নিজেরাই সামলাতে পারবে। কাজেই ধরে নেন এবার খেলোয়াড়রাই হচ্ছে কোচ।’

গত অক্টোবরে হঠাৎ করেই বাংলাদেশ দলের দায়িত্ব ছেড়ে দেন চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। এরপর নতুন কোচ নিয়োগের জন্য বেশ কয়েকজন কোচের সঙ্গে আলোচনাও করেছিল বিসিবি। সাক্ষাৎকার নিয়েছিল। দেখেছিল প্রেজেন্টেশন। তবে শেষ পর্যন্ত আসন্ন দুই সিরিজের জন্য কোচ না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় তারা। খেলোয়াড়দের ওপর এবং বাকি যে সকল কোচ রয়েছেন তাদের ওপরই দায়িত্ব ছেড়ে দিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রা সংস্থাটি।
এদিকে বাংলাদেশের ম্যানেজারের সঙ্গে আরও একটি খেতাব যুক্ত হয়েছে সুজনের। দলের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর হিসেবে আছেন তিনি। আছেন সহকারী কোচ রিচার্ড হ্যালসলও। সাকিব ও মাশরাফিকে তারাই সাহায্য করবেন বলে জানান পাপন, ‘বোর্ড থেকে একজন প্রতিনিধি থাকবে। বর্তমান সাপোর্ট স্টাফ যা আছে তাই থাকছে। পাশাপাশি বোর্ড থেকে আমাদের খালেদ মাহমুদ সুজন, ও সবসময় ম্যানেজার হিসেবে কাজ করতো, সংযোগ স্থাপনকারী হিসেবে কাজ করতো, খেলোয়াড় কোচ বোর্ডের মাঝে সমন্বয়ক হিসেবে কাজ করতো, সেটা সে থাকছে। যেহেতু সে থাকছে তাই তাকে একটা পদ দিয়েই রাখা হচ্ছে।’

নতুন বছরের প্রথম দিনে পাপন সোমবার দুই অধিনায়ককে ধানমন্ডিতে নিজের অফিশিয়াল কার্যালয়ে ডাকেন মূলত নববর্ষের শুভেচ্ছা জানানোর জন্যই। পাশাপাশি আসন্ন সিরিজের প্রস্তুতির ব্যাপারটা জেনে নেওয়াও ছিল একটি ব্যাপার। সেখানে আরও একবার মাশরাফি-সাকিবকে নিজেদের দায়িত্বের কথা জানিয়ে দিলেন পাপন।